রোববার, ১৬ জুন ২০২৪

সাপ্তাহিক নবযুগ :: Weekly Nobojug

গাজা যুদ্ধবিরতিতে অনুমোদন দিলো জাতিসংঘ

নবযুগ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৪০, ১১ জুন ২০২৪

গাজা যুদ্ধবিরতিতে অনুমোদন দিলো জাতিসংঘ

ছবি: সংগৃহীত

অবশেষে গাজা উপত্যকায় যুদ্ধবিরতি নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দেওয়া প্রস্তাব পাস হলো জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে। এর ফলে গাজায় আট মাস ধরে চলমান যুদ্ধের অবসান ঘটবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।  সেই সঙ্গে এর বাস্তবায়ন নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। সোমবার (১০ জুন) নিরাপত্তা পরিষদে প্রস্তাবটির ওপর ভোটাভুটি হয়। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এ খবর জানিয়েছে।

নিরাপত্তা পরিষদের ১৫ সদস্যের মধ্যে প্রস্তাবটির পক্ষে ভোট পড়ে ১৪টি। ভোটদানে বিরত থাকে রাশিয়া। ভোটের পরে এক বিবৃতিতে যুদ্ধবিরতির এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র সংগঠন হামাস। কীভাবে যুদ্ধবিরতির শর্তগুলো বাস্তবায়ন করা যায় সে নিয়ে মধ্যস্থতাকারীদের সঙ্গে পরোক্ষ আলোচনার ইচ্ছে প্রকাশ করেছে তারা।
প্রস্তাব পাসের পর জাতিসংঘে ফিলিস্তিনি দূত রিয়াদ মনসুর বলেছেন, এটা বাস্তবায়নের ভার এখন ইসরায়েলের হাতে।ভোটের পর জাতিসংঘে ইসরায়েলি দূত  গিলাদ এরদান বলেছেন, গাজা নিয়ে এমন কোনো অর্থহীন ও দীর্ঘমেয়াদি আলোচনায় জড়াবে না তারা, যেটা হামাস নিজেদের স্বার্থে কাজে লাগাতে পারে
ইসরায়েলের দেওয়া প্রস্তাবই ঘোষণা করেছিলেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন। তারপরও যুক্তরাষ্ট্র বলেছে যে, ইসরায়েল প্রস্তাবটি গ্রহণ করেছে। অবশ্য কিছু ইসরায়েলি কর্মকর্তা হামাসকে নির্মূল না করা পর্যন্ত যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের দূত লিন্ডা থমাস-গ্রিনফিল্ড ইসরায়েল ও হামাসকে অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব মেনে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।গত ৩১ মে গাজায় তিন ধাপে যুদ্ধবিরতি কার্যকরের এ প্রস্তাব দেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন। এর আগে গত ২৫ মার্চ গাজায় যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাব পাস হয়। ওই প্রস্তাবের পক্ষে ১৪ সদস্য ভোট দিয়েছিল। তখন ভোটদানে বিরত ছিল যুক্তরাষ্ট্র। তবে ওই প্রস্তাব মানেনি ইসরায়েল।আর এ কারণেই এবারের প্রস্তাবটির বাস্তবায়ন নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়। বৈশ্বিক দাতব্য সংস্থা মার্সি করপোরেশন জানিয়েছে, গাজার অর্ধেক মানুষ মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে বলে সময় নষ্ট না করে যুদ্ধবিরতির এ প্রস্তাব অবিলম্বে বাস্তবায়ন করা জরুরি।গাজায় ইসরায়েলি অভিযান এখনও চলছে। গত অক্টোবর থেকে চলমান যুদ্ধে নিহত হয়েছে অন্তত ৩৭ হাজার ১২৪ ফিলিস্তিনি। আহত কমপক্ষে ৮৪ হাজার ৭১২ জন। আর হামাসের হামলায় নিহত হয়েছে এক হাজার ১৩৯ ইসরায়েলি।

শেয়ার করুন: