বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪

সাপ্তাহিক নবযুগ :: Weekly Nobojug

হোয়াইট হাউস ঘোষণায় খুশি লক্ষ লক্ষ মানুষ

যুক্তরাষ্ট্রে বৈধ হচ্ছেন ৫ লাখ অভিবাসী

নবযুগ রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৬:২৮, ২১ জুন ২০২৪

যুক্তরাষ্ট্রে বৈধ হচ্ছেন ৫ লাখ অভিবাসী

ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রে বৈধ হচ্ছেন ৫ লাখ অভিবাসী। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার নির্বাচনী বছরে যুক্তরাষ্ট্রে বেআইনিভাবে অবস্থানরত লক্ষ লক্ষ অভিবাসীর জন্য স্বস্তির পদক্ষেপ ঘোষণা করেছেন। গত ১৮ জুন মঙ্গলবার হোয়াইট হাউস ঘোষণা করেছে, বাইডেন প্রশাসন আগামী কয়েক মাসের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের যাদের স্বামী বা স্ত্রীর আইনি মর্যাদা নেই এমন কিছুসংখ্যক মানুষের স্থায়ীভাবে বসবাস এবং পরবর্তীতে নাগরিকত্বের আবেদন করার অনুমতি দেবে।

প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মতে, এই পদক্ষেপ অন্নত ৫ লক্ষ অভিবাসন প্রত্যাশীর জন্য কার্যকর হতে পারে।
নতুন এই পদক্ষেপে, একজন অভিবাসীকে গত ১৭ জুন সোমবারে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসের ১০ বছর পূর্ণ হতে হবে, এ দেশে বসবাস করতে হবে এবং একজন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকের সাথে বৈবাহিক সূত্রে আবদ্ধ হতে হবে। এই যোগ্যতার ভিত্তিতে অভিবাসীর আবেদন অনুমোদিত হলে, তিনি গ্রিন কার্ডের জন্য আবেদন করার জন্য তিন বছর সময় এবং একটি অস্থায়ী ওয়ার্ক পারমিট পাবেন। তাছাড়া এর মধ্যে তিনি নির্বাসন থেকে রেহাইও পাবেন।
নির্বাচনী বছরের এটি একটি ব্যাপক পদক্ষেপ যা কয়েক লাখ মানুষকে নির্বাসন থেকে সুরক্ষা দেবে। এই পদক্ষেপটি প্রায় অর্ধ মিলিয়ন আমেরিকান পরিবার এবং ২১ বছরের কম বয়সী অভিবাসীদের প্রায় ৫০,০০০ অনাগরিক সন্তানদের যাদের বাবা-মা একজন মার্কিন নাগরিকের সাথে বিবাহিত তাদেরকে বৈধতার সুযোগ দিবে। ২০১২ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কর্তৃক ডিফার্ড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভাল প্রোগ্রাম ঘোষণা করার পর থেকে এটি অবৈধ অভিবাসীদের জন্য ফেডারেল সরকারের সবচেয়ে বড় রিলিফ কর্মসূচির একটি। অর্থ্যাৎ মার্কিন নাগরিকদের স্বামী- স্ত্রী এবং তাদের সন্তানরা বৈধতার সুযোগ পাবেন। এটি তাদের জন্য সবচেয়ে বড় সুখবর।
যোগ্যতা অর্জনের জন্য একজন অভিবাসীকে ১৭ জুন সোমবার পর্যন্ত ১০ বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকতে হবে এবং একজন মার্কিন নাগরিকের সাথে বিবাহিত হতে হবে। যদি একজন যোগ্য অভিবাসীর আবেদন মঞ্জুর করা হয়, তাহলে তিনি গ্রিন কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন তিন বছরের মধ্যে। যোগ্য ব্যক্তিরা প্রথমে একটি অস্থায়ী ওয়ার্ক পারমিট পাবেন। অবৈধভাবে থাকার যন্ত্রণা থেকে রক্ষা পাবেন। দম্পতিকে কতদিন বিয়ে করতে হবে তার কোনও প্রয়োজন নেই, তবে ১৭ জুন সোমবারের পরে কেউ বিয়ে করলে তিনি আবেদনের যোগ্য হবেন না। 
বর্তমান ফেডারেল আইনের অধীনে একজন অবৈধ ব্যক্তি যিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেন এবং একজন মার্কিন নাগরিককে বিয়ে করেন তাকে আইনি বসবাসের জন্য আবেদন করার আগে প্রথমে প্যারোলের আবেদন করতে হয়। এই প্রক্রিয়ার জন্য তাদের দেশ ত্যাগ করতে হবে। যদি আবেদনকারী যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধভাবে বসবাস করেন তাহলে আবেদনকারীকে পুনরায় প্রবেশের জন্য অনুমোদিত হবে কিনা তা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি করে। প্রেসিডেন্ট বাইডেনের ১৮ জুন মঙ্গলবারের নির্বাহী পদক্ষেপটি সেই সকল স্বামী/স্ত্রীর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ছেড়ে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। এবং তারা স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য আবেদন করতে পারবেন।
ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেন গত ১৮ জুন মঙ্গলবার বলেন,‘আজ আমি আপনাকে একটি আমেরিকান গল্প বলতে চাই। আপনি এক দশক আগে এই দেশে এসেছিলেন কাজ করতে, পড়াশোনা করতে, ভবিষ্যত খুঁজতে। আপনি একটি পরিকল্পনা করেছিলেন এবং তারপরে আপনি প্রেমে পড়েছিলেন। তাই আপনি একটি জীবন, একটি বাড়ি তৈরি করেছিলেন, আপনার ছোট মুখে বড় হাসিতে ভরা। কিন্তু আপনার উপর ঝুলে থাকা একটি ছায়া, আপনাকে তাড়িত করে। একটি কাগজের জন্য আপনার পরিবার একসাথে থাকতে পারে না- এটা এমন একটি গল্প- যা সারা দেশে বিদ্ধমান।’ প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নতুন প্রোগ্রামটি স্থায়ীভাবে বসবাসের পথটি উন্মোচন করবে, যা গ্রিনকার্ড নামে পরিচিত। যার ফলে অনেকের ভাগ্য খুলে যাবে।
প্রেসিডেন্ট বাইডেনের প্রশাসনিক কর্মকর্তারা অনুমান করেন যে, প্রেসিডেন্টের নতুন নির্বাহী পদক্ষেপের ফলে প্রায় ৫০০,০০০ অবৈধ অভিবাসী প্যারোল ইন প্রোগ্রামের জন্য যোগ্যতা অর্জন করবে। আবেদনকারীদের অবশ্যই ১৭ জুনের মধ্যে আইনতভাবে বিবাহিত হতে হবে। যাদের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরূপ মনে করা হবে তারা এই আবেদনের জন্য যোগ্য হবেন না।
হাউস স্পিকার মাইক জনসন এক বিবৃতিতে বলেন, তিনি প্রেসিডেন বাইডেনের অভিবাসন আদেশকে বাতিল করার জন্য আদালতে যাবেন। তিনি আশা করেন আদালত বাইডেনের আদেশকে বাতিল করবে।
আমেরিকান ইমিগ্রেশন ল’ইয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন প্রেসিডেন্টের এই ঘোষণাকে সাধুবাদ জানিয়েছে। প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী পরিচালক বেন জনসন মন্তব্য করেছেন, এই ঘোষণা আমেরিকান পরিবার এবং ব্যবসার চাহিদা পূরণে একটি সাহসী পদক্ষেপ। ১২ বছর আগের ডাকা প্রোগ্রামের মতো, এই নতুন পদক্ষেপে কয়েক হাজার আমেরিকান পরিবারের জীবন পরিবর্তন করার সম্ভাবনা রয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের কোনো নাগরিকের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ বাবা-মায়ের প্রায় ৫০ হাজার অনাগরিক শিশুও একইভাবে নাগরিকত্বের জন্য যোগ্য হবে। তবে তার জন্য তাদের বিবাহিত থাকার সময় গুরুত্বপূর্ণ না। তবে ২০২৪ সালের ১৭ জুনের পর যে কোনো সময় ১০ বছর পূর্তিতে পৌঁছানো অভিবাসীরা এই কর্মসূচির জন্য যোগ্য হবেন না বলে জানিয়েছেন তারা।
প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলেছেন, তারা আশা করছেন গ্রীষ্মের শেষের দিকে প্রক্রিয়াটি আবেদনের জন্য উন্মুক্ত হবে। আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় ফি এখনও নির্ধারণ করা হয়নি।
 

শেয়ার করুন: