রোববার, ১৬ জুন ২০২৪

সাপ্তাহিক নবযুগ :: Weekly Nobojug

বাইডেন-ট্রাম্পের  ভাগ্য নির্ধারণ গৃহমূল্যে

নবযুগ রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৬:১৮, ৩১ মে ২০২৪

বাইডেন-ট্রাম্পের  ভাগ্য নির্ধারণ গৃহমূল্যে

ছবি: সংগৃহীত

আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গৃহমূল্য দুই প্রার্থী জো বাইডেন ও ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভাগ্য নির্ধারণ করে দিতে পারে। সাম্প্রতিক এক জরিপে এমন তথ্যই প্রকাশিত হয়েছে।হাউজিং পারফরমেন্স অ্যান্ড ইলেক্টরেটের এই একাডেমিক জরিপে ২০০০ থেকে ২০২০ পর্যন্ত ছয়টি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রতিটিতে সারা দেশে গৃহমূল্য এবং নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষণ করা হয়েছে।

জরিপ পরিচালনাকারীরা দেখতে পেয়েছেন যে কাউন্টি পর্যায়ে বাড়ির মূল্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোটের ওপর বেশ ভালো রকমের প্রভাব ফেলে। বিশেষ করে বাড়ির দাম যদি বাড়ে, তবে ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্টকে ভোট দেওয়ার হার বাড়ে। আর কমলে চ্যালেঞ্জকারী সুবিধা পান।
অন্যভাবে বলা যায়, বাড়ির দাম দ্রুতগতিতে বাড়তে থাকলে বিদ্যমান প্রেসিডেন্টের অনুকূলে ভোট পড়ে। ওই প্রেসিডেন্ট ডেমোক্র্যাটিক হন বা রিপাবলিকান হন, তাতে কোনো সমস্যা হয় না। বিশেষ করে ‘সুইয়িং কাউন্টিগুলোর’ ভোট ছোট গ্রুপের মধ্যে বাড়ির দাম খুবই প্রভাব ফেলে।
আলাবামা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থশাস্ত্রের সহযোগী অধ্যাপক অ্যালেন টিডওয়েল ছিলেন এই সমীক্ষার অন্যতম সদস্য। তিনি বলেন, এক্ষেত্রে যুক্তি খুবই সরল। বেশিভাগ ভোটারের কাছে তাদের বাড়িই তাদের একক সবচেয়ে বড় সম্পদ। 
তিনি বলেন, ‘যখন কারো বাড়ির আর্থিক মূল্য বেশি হয়, তখন তিনি নিজেকে বেশি ধনী মনে করেন। আর নিজেকে আর্থিকভাবে যত বেশি সম্পদশালী মনে হবে, তার মধ্যে তত বেশি সুখে থাকার অনুভূতি চলে আসবে।’
বিশ্লেষণকারীরা মনে করেন, সাতটি ব্যাটলগ্রাউন্ড স্টেট- অ্যরিজোনা, জর্জিয়া, মিশিগান, নেভেডা, নর্থ ক্যারোলিনা, পেনসিলভানিয়া ও উইসকনসিনেনর সুইয়িং কাউন্টিগুলোতে বাড়ির দাম নির্বাচনের ফলাফলে বিশেষভাবে প্রভাব বিস্তার করে।
জরিপকারী দলের অন্যতম সদস্য এরেন সিফসি বলেন, সুইয়িং কাউন্টিগুলোতে অর্থনৈতিক বিষয়গুলোকে বেশি মূল্য দেওয়া হয়। আর এর মধ্যে রিয়েল এস্টেট হলো অন্যতম। আর তা ভোটারদের প্রভাবিত করে।
সমীক্ষায় দেখা গেছে, বাড়ির মালিকরা এমন প্রার্থীকে ভোট দিতে আগ্রহী থাকে, যিনি নির্বাচিত হলে বাড়ির দাম বাড়বে। তারা ‘হোমভোটার’ নামে একটি পরিভাষাও ব্যবহার করেছেন। এই পরিভাষাটি ২০০১ সালে উইলিয়াম এ ফিচেল নামের এক অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ ব্যবহার করেছিলেন।
তার মতে, কোনো কোম্পানির স্টকের মালিকের মতোই বাড়ির মালিকরা নিজেদেরকে সংশ্লিষ্ট কউিনিটির শেয়ারহোল্ডার মনে করেন।
জরিপে দেখা গেছে, সুইয়িং কাউন্টিগুলোর ৭৭ ভাগ ভোটার নির্বাচনে দলীয় অবস্থান পরিবর্তন করে না। তারা ডেমোক্র্যাট বা রিপাবলিকান- যেকোনো একটি দলকেই ভোট দেবে, সে দলের প্রার্থী বা নীতি যাই হোক না কেন।
তবে সারা দেশের ৬৪১টি কাউন্টিতে (২৩ ভাগ) দেখা গেছে, এসব স্থানের ভোটাররা তাদের অবস্থান পরিবর্তন করে। অনেকে প্রতিবছরই মত বদলায় বলে দেখা গেছে। আর এই মত বদলানোর পেছনে বাড়ির দাম বিশেষ ভূমিকা পালন করে।
গত চার বছরে সাতটি সুইয়িং স্টেটসহ সমগ্র যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ির দাম ব্যাপকভাবে বেড়েছে। ২০০০ সালের মার্চ থেকে ২০২৪ সালের মার্চ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ির দাম বেড়েছে ৪৬.৪ ভাগ। আর সুইয়িং স্টেটগুলোর মধ্যে নর্থ ক্যারোলিনা, অ্যরোজিনা, জর্জিয়া ও উইসকনসিনে চার বছরে বাড়ির দাম বেড়েছে ৫০ ভাগের বেশি।
সমীক্ষায় বলা হয়, এই প্রবণতা বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে সুবিধা দেবে। 
 

শেয়ার করুন: